অর্থনীতি

কোরবানির পশুর ফেলনা অঙ্গে বাড়ছে  রপ্তানি আয়

কোরবানির পর পশুর নাভি, পাকস্থলী, পুরুষাঙ্গ, শিংসহ বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ আর অকেজো থাকে না। এই অঙ্গগুলিরও এখন একটি আর্থিক মূল্য রয়েছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে রপ্তানি করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করছেন দেশের তরুণ উদ্যোক্তারা। সারা বছর জবাইকৃত পশুর এসব অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সংগ্রহ করে রপ্তানি করা হলেও সবচেয়ে বেশি সংগ্রহ হয় মূলত কোরবানি ঈদে। এসব পণ্য যাচ্ছে ভিয়েতনাম, হংকং, চীন, থাইল্যান্ডসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। প্রতি বছর এসব দেশে চাহিদা বাড়ছে। ফলে সম্ভাবনাময় এ খাতে চলতি বছরেও ভালো আয় হয়েছে। চলতি অর্থবছর ২০২৩-২৪-এর প্রথম এগারো মাসে রপ্তানি আয় ইতিমধ্যেই আর্থিক বছরের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। তবে চাহিদা থাকলেও সচেতনতার অভাবে প্রয়োজনীয় পরিমাণে এসব পণ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে না বলে জানান তারা।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্য অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের প্রথম এগারো মাসে (জুলাই থেকে মে) রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়েছে ২৭ দশমিক ২০ শতাংশ। এ সময়ে রপ্তানি হয়েছে ৯ দশমিক ৮২ মিলিয়ন ডলার। যেখানে এই সময়ে রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৭ দশমিক ৭২ মিলিয়ন ডলার। আর পুরো অর্থবছরে (জুলাই থেকে জুন) লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮ দশমিক ৫ মিলিয়ন ডলার। অর্থাৎ চলতি অর্থবছরের ১১ মাসে অর্জিত বৈদেশিক মুদ্রা আয় পুরো অর্থবছরের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে।

ইপিবির হিসাব অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রথম এগারো মাসে আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় আয় হয়েছে ২ দশমিক ৪৬ মিলিয়ন ডলার বা ৩৩ দশমিক ৪২ শতাংশ বেশি। ২০২২-২৩ অর্থবছরের একই সময়ে রপ্তানি হয়েছে ৭.৩৬ মিলিয়ন ডলার। আর গত অর্থবছরের ১২ মাসে এ খাতে রপ্তানি আয় ছিল ৭ দশমিক ৪৪ মিলিয়ন ডলার। অর্থাৎ চলতি অর্থবছরে রপ্তানি আয় ভালো অবস্থানে রয়েছে।

খাত সংশ্লিষ্টরা জানান, এসব অপ্রচলিত পণ্যের মধ্যে বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে গরুর পেট (স্থানীয়ভাবে সাতপাল্লা নামেও পরিচিত) রপ্তানি হচ্ছে সবচেয়ে বেশি। আন্তর্জাতিক বাজারে এটি ‘ওমাসাম’ নামে পরিচিত। রপ্তানিকারকরা বিপুল পরিমাণে পণ্যের অগ্রিম অর্ডার পাচ্ছেন। তাছাড়া বছরের শেষ দিকে রপ্তানি উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পায়।

এর পরে রয়েছে গরুর লিঙ্গ, যা পিজল নামে পরিচিত। কিন্তু এর সংগ্রহ খুবই কম। এখনও হংকং এবং ভিয়েতনাম ঘন ঘন এবং ভাল দাম পাওয়া যায়. এছাড়া শিংসহ অন্যান্য যন্ত্রাংশও রপ্তানি হয়। তবে তা সামান্য পরিমাণ। রপ্তানিকারকরা জানান, আগে হাড় রপ্তানি হলেও বর্তমানে তা বন্ধ রয়েছে। মূলত ওমাসম ও পিজল রপ্তানি আয়ে বড় ভূমিকা রাখছে।

প্রতি ঈদে সাতপাল্লা ও গরুর লিঙ্গ সংগ্রহ করেন হাজারীবাগের ব্যবসায়ী। সেলিমসহ আরও কয়েকজন ব্যবসায়ী এখানে। সেলিম জানান, অন্যান্য সময়ের তুলনায় কোরবানির সময় ব্যাপক সংগ্রহ থাকে। তারা প্রতিটি সাতপাল্লা প্রতি পিস ২০০ থেকে ২৪০ টাকা এবং লিঙ্গা ৬০ থেকে ১২০ টাকায় ক্রয় করে এবং পরিষ্কার ও কমানোর পর অল্প লাভে বিক্রি করে। এতে তারা ভালো আয় পান।

বিসমিল্লাহ ট্রেডার্স প্রতি বছর ৭ থেকে ৮ টন পিজল রপ্তানি করছে। কোম্পানির বাণিজ্যিক নির্বাহী মো. সোহেল বলেন, পণ্য সংগ্রহের নিজস্ব চেইন থাকা সত্ত্বেও অর্ডার পূরণে প্রয়োজনীয় সংগ্রহ করা হয় না।